বিনোদন

সুন্দরী অভিনেত্রী ভাগ্যশ্রী কোন চক্রান্তের শিকার হয়ে সিনেমা জগতকে বিদায় জানিয়েছেন

বলিউডের যদি ১০টি প্রেমের সিনেমার তালিকা করা হয় তবে সেই তালিকায় সহজেই জায়গা করে নেবে ‘ম্যয়নে পেয়ার কিয়া’। আর সেই ছবির নায়িকা ছিলেন বলিউড অভিনেত্রী ভাগ্যশ্রী। তিনি ৯০ দশকের বলিউড সিনেমায় অভিনয় করতেন। সুরজ বরজাতিয়ার ছবি ‘ম্যয়নে পেয়ার কিয়া’ নব্বই দশকের রোমান্টিক ছবি। এই ছবিতে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে আজকের বলিউড অভিনেতা সালমান খান ও ভাগ্যশ্রীকে।

ছবিটি বানিজ্যিকভাবে বেশ সফল হয়েছিলো। তবে এই ছবিতে অভিনয় করার পর আর বলিউডে ফিরে আসেননি ভাগ্যশ্রী। তিনি যদিও বহু তামিল, কন্নড়, ভোজপুরি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তবু বি টাউনে তাকে আর দেখা যায়নি। যদিও ‘ম্যয়নে পেয়ার কিয়া’ ভাগ্যশ্রীর প্রথম অভিনীত ছবি নয়। তিনি ছোটোবেলা থেকেই অভিনয় করতেন। তার প্রথম অভিনয় শুরু হয় অমল পালেকরের পরিচালিত দূরদর্শনের ‘কচ্চি ধূপ’ ধারাবাহিক থেকে।

এরপর তার আর ফিরে তাকাতে হয়নি। আসে ছবিতে অভিনয় করার সুযোগ। প্রথম ছবিই হিট হয় তার। যদিও ছবিতে ভাগ্যশ্রীকে লাজুক স্বভাবের লাগলেও তিনি মোটেও ততটা লাজুক নন। নিজেই পছন্দের মানুষকে ভালোবাসার কথা জানিয়েছেন। তার পছন্দের মানুষের নাম হিমালয়, তিনি পেশায় একজন ব্যবসায়ী। তবে ভাগ্যশ্রীর রক্ষণশীল পরিবার তার এই সম্পর্ক মানতে পারেননি।

তাই পরিবারের অমতেই ‘ম্যয়নে পেয়ার কিয়া’ -এর শ্যুটিং চলাকালীন বিয়ে করে নেন ভাগ্যশ্রী। সেই বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন ছবির পুরো টিম ও হিমালয়ের পরিবার। এই ছবিতে সাফল্য আসলে এরপর সুযোগ আসে ভাগ্যশ্রীর। কিন্তু তিনি আর ফেরেননি বলিউডে। এরপর স্বামীর সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয়তে রাজি হয়েছিলেন ভাগ্যশ্রী। হিমালয় ও ভাগ্যশ্রী জুটি দর্শকেরা পছন্দ করেননি কিন্তু নিজের সিদ্ধান্তে অনড় ছিলেন তিনি।

স্বামী, সংসার নিয়েই তিনি দিব্যি ছিলেন। যদিও ভাগ্যশ্রী একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, অনেকেই হয়তো ভাবেন তার স্বামী হিমালয় তাকে অভিনয় করতে বাঁধা দিয়েছেন। কিন্তু তা একেবারেই নয়। তিনি নিজেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। আগামীতে ভাগ্যশ্রীকে দেখা যাবে, কঙ্গনা রানাউতের ছবি ‘থালাইভি’ ও প্রভাসের ছবি ‘রাধে-শ্যাম’-এ।

Related Articles