নিউজ

ফের বাড়তে চলেছে ভোজ্য তেলের দাম? জেনে নিন তেলের বাজারের বর্তমান পরিস্থিতি

কিছুদিন আগেও ভারতে ভোজ্য তেলের বাজার আগুন ছিল। তার পর আস্তে আস্তে করে কমতে থাকে দাম। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ, মুদ্রাস্ফীতি, পাম তেলের উপর ইন্দোনেশিয়া র ব্যান থাকায় গত এপ্রিল-জুন মাসে সমস্ত ভোজ্যতেলের দাম আকাশ চুয়েছিলো। তবে জুলাই থেকে আবার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে থাকে। কিন্তু আবারও ভারতে বৃদ্ধি পেল সমস্ত রকম ভোজ্য তেলের খুচরো দাম। সরষে, বাদাম, সয়াবিন, সিপি ও পামোলিন সহ ভারতে প্রায় সমস্ত ভোজ্য তেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে আজ থেকে। এই মূল্যবৃদ্ধি শুধুমাত্র যে ভারতের খুচরা বাজারে এমন নয়, একই রকম ভাবে বিভিন্ন রান্নার তেলের দাম বৃদ্ধি হয়েছে প্রায় সমস্ত জায়গার পাইকারি বাজারেও।

যদিও ব্যবসায়ীরা বলছেন যে, বিদেশে সয়াবিন এবং পাম তেলের দাম ব্যাপক হারে বেড়েছে। সয়াবিন ও পাম তেলের প্রতি টন পিছু ৫০ থেকে ১০০ ডলার বৃদ্ধি পেয়েছে। আর তারই আঁচ পড়তে শুরু করেছে ভারতের প্রত্যেক মধ্যবিত্তের হেঁশেলে। সাধারণত সূর্যমুখী এবং বাদাম তেলের দাম সরষের তেলের থেকে কিছুটা বেশি থাকে। অন্যদিকে আবার পাম তেলের দাম সর্ষের তেলের থেকে বেশ কিছুটা কম থাকে। তবে তেলের দাম হিসাব করলে বাদাম তেলের দাম মোটামুটি ভাবে ভারতে উপলব্ধ সবকটি তেলের থেকেই বেশি।

রান্নার কাজে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সব রকম তেলেরই প্রয়োজন হয়। তাছাড়া ভারতীয় দের খাওয়ার পেতে কাঁচা তেল খাওয়ার অভ্যাস আছে। সে ক্ষেত্রে সর্ষের তেলে ব্যবহার বেশি। অন্যদিকে ভাজা ভুজির ক্ষেত্রে পাম তেল বহুল ব্যবহৃত। সয়াবিন তেল, বাদাম তেল, সূর্যমুখীর তেল মূলত রান্নার কাজে ব্যবহার হয়ে থাকে। এটি এই ভাবে তেলের দাম বাড়ায় মাথায় হাত আপামর জনসাধারণের।

তবে এর সাথে সূত্রের খবর অনুযায়ী জানা যাচ্ছে গত সপ্তাহ থেকে পাইকারি বাজারে সরষের তেলের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এই দাম বৃদ্ধির কারণে প্রভাব পড়েছে ভারতের বিভিন্ন মার্কেটে। তবে শুক্রবার সরকার অপরিশোধিত পাম তেলের আমদানি শুল্ক কিছুটা কমিয়েছে। কিন্তু সেই সাথে পামোলিন এবং সয়াবিনের আমদানি শুল্কের হার বৃদ্ধি করেছে। তাই পাম তেলের দাম খানিকটা কমলেও এর ফলে পামলিন এবং সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধি হবারও সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

Related Articles