নিউজ

ধর্ম প্রচারের নামে শিষ্যাদের ধর্ষণ! ১০৭৫ বছরের জেল তুরস্কের ধর্মগুরুর!

এবার মহিলাদের উপর যৌন নির্যাতনের অভিযোগ সহ আরও একাধিক অভিযোগে ৬৪ বছরের জনপ্রিয় ধর্মগুরু ওকতারকে ১০৭৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। যদিও তিনি আদালতের সামনে জোর গলায় বলেছিলেন তার এক হাজার বান্ধবী আছে। কিন্তু তার কথা শেষ পর্যন্ত শোনেনি আদালত। পুলিশ ওকতারের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ এনেছে। ২০১৮ সালে ওকতার সহ আরও কয়েকজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

একটি বিশেষ গোষ্ঠীর প্রধান ওকতারের সংগঠনকে তুরস্ক পুলিশ অপরাধীদের গোষ্ঠী বলে চিহ্নিত করে। ওকতারকে যখনই টেলিভিশনের পর্দায় দেখা যেত তার চারিপাশে ঘিরে থাকত মহিলারা। সর্বত্র তিনি মহিলা দ্বারা পরিবেষ্টিত থাকতেন। পুলিশ জানিয়েছে, ওকতার মহিলাদের ‘পোষ্য’ বলে মনে করতেন। তবে ওকতার অন্য এক যুক্তি দিয়েছে। সে জানিয়েছে, “তার জীবনে লক্ষ্য হলো প্রেম দান করা। তাই সে প্রেম বিলিয়ে চলে। তার হৃদয়ে অসীম প্রণয় রয়েছে “।

এক মহিলার তরফে জানা গিয়েছে, ওকতার ধর্ম প্রচারের নামে মহিলাদের উপর নৃশংস যৌন নিপিড়ন করত। পুলিশ ওকতারের বাড়ি খানাতল্লাশি করে ৬৯ হাজার গর্ভ নিরোধক উদ্ধার করেছে। জানা গিয়েছে, সেই গর্ভ নিরোধকগুলি ওকতার তার মহিলা অনুগামীদের জোর করে খেতে বাধ্য করত।

গত দুই বছর আগে সংগঠন ও সংগঠনের প্রধানকে পুলিশ গ্রেফতার করে। এরপর ২৩৬ জন সন্দেহজনক ব্যক্তিকে মামলায় যুক্ত করা হয়। তাদের মধ্যে ৭৮ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করে। ওকতার ১৯৯০ সাল থেকে একাধিক যৌন নিপিড়নের ঘটনায় জড়িয়ে পড়ে। ২০১১ সাল থেকে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা জমতে থাকে।

Related Articles