অফবিটনিউজবিনোদন

পরিবারের আপত্তি না মেনে মনসুর আলিকে বিয়ে করেন ব্রাহ্মণ ঘরানার সাহসী শর্মিলা ঠাকুর

ভারতীয় ক্রিকেট ও বলিউডের যে কতখানি যোগসূত্র রয়েছে তা আর আলাদা করে বলার অপেক্ষা রাখে না। বহুদিন ধরেই চলে আসছে এই দুই জগতের প্রেম-কাহিনী। সেরকমই একটি জুটি মনসুর আলি খান পতৌদি ও শর্মিলা ঠাকুর। একজন ক্রিকেটের উজ্জ্বল নক্ষত্র আর অন্যজন অভিনয় জগতের জনপ্রিয় নাম। তাদের আলাপ ১৯৬৫ সালে হওয়া একটি ক্রিকেট ম্যাচের দরুন।

সেইসময় ভারতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন পতৌদি। অন্যদিকে শর্মিলা ঠাকুর তখন অভিনয়ে নিজের কেরিয়ার সবে শুরু করেছেন। এরপর দীর্ঘ চার বছর ধরে প্রেম করেন তারা। শোনা যায় ১৯৬৭ সালে ‘অ্যান ইভিনিং ইন প্যারিস’ ছবিতে অভিনয় করার সময় তার বিকিনি পরিহিত অবস্থায় আসা নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়। তবে সেইসময় পাশে পেয়েছিলেন তার প্রেমিককে। রীতিমতো তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন দর্শকদের।

এরপর ১৯৬৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘আরাধনা’র মাধ্যমে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন তিনি। একের পর এক পুরস্কারের অধিকারী হন এই অভিনেত্রী। একইসাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন শর্মিলা ও নবাব পতৌদি। হিন্দু ও ইসলাম এই দুই রীতি মেনেই বিয়ে করেন তারা। প্রমাণ করেন ভালোবাসার কাছে জাতি, ধর্ম ও পেশা তুচ্ছ। পাশাপাশি বিয়ের পর তার নাম হয় আয়েষা বেগম।

তাদের জুটি এতোটাই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল যে, টাইগার যখন মাঠে নামতেন নেপথ্যে বেজে উঠতো শর্মিলার সিনেমার গান। অন্যদিকে তিন সন্তান, স্বামী ও সংসার সামলেও অভিনয় জগতে সমান সময় দিয়েছেন তিনি। ২০১১ সালে শর্মিলাকে(Sharmila Tagore) একা ছেড়ে চিরদিনের জন্য বিদায় নেন পতৌদি। এরপর আর রুপোলি পর্দায় দেখা যায়নি শর্মিলাকে। চলতি বছরে ৭৬এ পা রাখলেন তিনি।

Related Articles