নিউজ

‘উইপোকারা বেরিয়ে গেলে দলটার শুদ্ধিকরণ হবে’, নাম না করে শুভেন্দুকে তোপ সোহম চক্রবর্তীর

এবার নাম না করে শুভেন্দু অধিকারীকে বিঁধলেন যুব তৃনমূলের সহ সভাপতি সোহম চক্রবর্তী (Soham Chakraborty)। তিনি এবার মালদহের পথসভা থেকে নাম না করেই তোপ দাগলেন। সোহম সেই সভায় বলেন, “এরা হল উইপোকা, এইসব মানুষ আমাদের দল থেকে যত বেরিয়ে যাবে ততই দলটার শুদ্ধিকরণ হবে”। তিনি কটাক্ষ করে আরও বলেন, ” এতদিন ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৈনিক হয়ে চলেছেন। গত ৬ বছরে কী করে গিয়েছেন তা আপনারা স্পষ্ট ভাবে বুঝতে পারছেন”।

তবে কি এই কটাক্ষের মূলে শুভেন্দু অধিকারী?(Suvendu Adhikari) প্রশ্ন উঠেছে রাজনৈতিক মহলে। বুধবার মালদহের তৃণমূলের (TMC) শাখা সংগঠন জয়হিন্দ বাহিনীর তরফে একটি পথসভার আয়োজন করা হয়। সেই সভায় তৃনমূলের সহ সভাপতি সোহম চক্রবর্তী আরও বলেন, “এত সাহস, এত ঔদ্ধত্য যে দল থেকে বেরিয়ে গিয়ে এখন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে উল্টোপাল্টা বলছে। তাকে বলছে সে নাকি তোলাবাজ। কয়েকদিন আগে টিভির পর্দায় আপনাদের দেখা গিয়েছে মুঠো মুঠো টাকা তোলাবাজি করতে”।

এছাড়া সোহম বিজেপিকে হুঁশিয়ারী দিয়ে আরও বলেন, ” বাংলায় ঘুরতে এসো, বাংলা দেখতে এসো। তোমাদের মালদহের মিষ্টি আম দিয়ে স্বাগত জানাবো। বাংলার দিকে কুনজরে তাকালে আমের আঁটি ছুঁড়ে মারবো”। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর শুভেন্দু অধিকারী বিজেপির বেশ কিছু জনসভায় তৃনমূলকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন। এছাড়া তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি। তিনি স্লোগান তুলে বলেন, “তোলাবাজ ভাইপো হটাও”। শুভেন্দু অধিকারী এক সভায় বলেন, ” তোলাবাজ ভাইপো আমাকে বলেছিল এক বাপের ব্যাটা হলে আলাদা আঞ্চলিক দল করল না কেনো? আঞ্চলিক দল করে আমি যদি কিছু ভোট করতাম তাহলে ওদের সুবিধা হতো। কিন্তু তা আমি করিনি। দুনিয়ার সবচেয়ে বড় দল বিজেপি, আমি সেখানেই যোগ দিয়েছি”।

তবে মালদহের পথসভা থেকে সোহম চক্রবর্তী নাম না করে যে তোপ দেগেছেন তা যে তিনি শুভেন্দু অধিকারীকেই কটাক্ষ করে করেছেন তা স্পষ্ট। এদিকে এক মঞ্চে দাঁড়িয়ে শুভেন্দু জানান, তার সঙ্গে অমিত শাহ-এর যোগাযোগ ২০১৪ সাল থেকে। অপরদিকে সোহম ৬ বছরের কথা উল্লেখ করেছেন। আর তারফলে অনুমান আরও স্পষ্ট হয়েছে।

Related Articles