অফবিট

বিয়ের কয়েক ঘণ্টা আগে পঙ্গু হয়ে গেল কনে, মিষ্টি প্রেমের বাস্তব কাহিনী

সিনেমা আমাদের যে অলীক স্বপ্ন দেখায় তা বাস্তবে কখনো সম্ভব নয়। কিন্তু কিছু কিছু সময় সিনেমার গল্পের সঙ্গে বাস্তবের মিলন ঘটে। আর তখনই সেই খবর আমাদের মন ভালো করে দেয়। আমরা বিবাহ সিনেমায় দেখেছিলাম শাহিদ ও অমৃতার ভালোবাসার গল্প। সেখানে বিয়ের আগেই আগুনে পুড়ে যান নায়িকা। এরপর তাকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু নায়ক তখন অমৃতাকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে বিয়ে করার কথা ভাবেনি। বরং হাসপাতালে পৌঁছে যায় সে নায়িকাকে বিয়ে করতে।

কিন্তু এমন ঘটনা বাস্তবে আমরা খুবই কম দেখি। মাঝেমধ্যেই খবরে চোখ রাখলে পণের জন্য বধূ নির্যাতন বা বধূকে পুড়িয়ে মারা, তাদের উপর অত্যাচারের নানান খবর দেখতে পাই। তবে এবার এসবের থেকে ব্যতিক্রম একটি ঘটনা সম্প্রতি ঘটে গিয়েছে উত্তর প্রদেশের প্রতাপগড়ে। আর এই ঘটনা বর্তমানে গোটা দেশের কাছে উদাহরণ হয়ে থাকবে। বিয়ের কয়েক ঘন্টা আগে দুর্ঘটনার জেরে কনে পঙ্গু হয়ে যায়। তারপর তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এদিকে বিয়েতে নিজের জীবনসঙ্গী হিসেবে সেই কনেকেই বেছে নিল পাত্র। শুধু তাই নয়, দিনরাত হাসপাতালে সঙ্গীর পাশে থেকে তার সেবা করল পাত্র।

চলতি মাসের ৮ তারিখ বিয়ে হওয়ার কথা ছিল প্রতাপগড়ের কুন্ডা এলাকার আরতি মৌর্যের সঙ্গে পাশের গ্রামের অবধেশের। এদিকে বিয়ের কয়েক ঘন্টা আগেই ঘটল দুর্ঘটনা। একটি বাচ্চাকে বাঁচাতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে যান আরতি মৌর্য। তার শিরদাঁড়া দুই টুকরো হয়ে যায়। এছাড়া হাতে, পায়েও গুরুতর চোট লাগে। তাকে হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়৷ এদিকে ডাক্তার জানান আরতির আগামী কয়েক মাস বিছানায় শুয়ে থাকতে হবে৷ সে পুরোপুরি সুস্থ হবে কিনা তাও সংশয়ের ব্যপার। এরপর আরতির বাড়ির লোক অবধেশকে জানায় আরতির বোনকে বিয়ে করতে।

কিন্তু এই অদ্ভুত প্রস্তাবে রাজি হননি অবধেশ। হাসপাতালে অসুস্থ জীবনসঙ্গীনীর কাছে ছুটে যান তিনি। তিনি জানান, আরতিকে ছাড়া তিনি আর কাউকে বিয়ে করবেন না। দরকার পড়লে হাসপাতালেই বিয়ে করবেন। এরপর হাসপাতালের চিকিৎসকরা ঘন্টা দুয়েকের জন্য আরতিকে অ্যাম্বুলেন্সে করে বাড়িতে পাঠান। লগ্ন মেনে বিয়ে হওয়ার পর হাসপাতালে ফিরে আসেন আরতি। অবধেশ সাধারণ ঘরের ছেলে হয়েও তার শিক্ষার জন্য আজ সে অসাধারণ কাজ করে গোটা দেশের কাছে উদাহরণ হয়ে থাকবে।

Related Articles